লাইফস্টাইলফিয়েচার্ডসাম্প্রতিকস্বাস্থ্য সমস্যা

ঘুমের ঔষধের নাম কি | বহুল ব্যবহৃত কিছু ঘুমের ঔষধের নাম। Sleeping Pill Name

ঘুমের ঔষধের নাম কি | বহুল ব্যবহৃত কিছু ঘুমের ঔষধের নাম।
যদি আপনার প্রশ্ন হয় ঘুমের ওষধের নাম কি? তাহলে এই আর্টিকেলটি আপনার জন্য । বিভিন্ন ধরনের মানসিক, শারিরিক বা দৈনন্দিন সমস্যার কারণে আমাদের ঠিক ভাবে ঘুম হয়না। এই অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে চিকিৎসকরা বিভিন্ন সময় আমাদের ঘুমের ঔষধ প্রেসক্রাইব করে থাকেন। সুতরাং সবচেয়ে ভালো কিছু ঘুমের ওষুধের নাম আমরা জেনে রাখতে পরি। ফলে সহজেই ভালো মানের ঔষধ সেবন করা আমাদের জন্য সহজ হবে।
অবশ্যই মনে রাখা উচিত যে, ঘুমের ঔষধ কখনো নিজে নিজে কিংবা যেকোনো কারো পরামর্শে সেবন করা কখনই ঠিক না। কারণ ঘুমের ওষুধের ডোজর পরিমাণ, রোগ ভেদে এর প্রয়োজনীয়তা ভিন্ন হতে পারে। যেমন যার হার্টের বা ফুসফুসের রোগ আছে বা যিনি কিডনি বা লিভারের সমস্যায় ভুগছেন তাদের ক্ষেত্রে ঔষধের গ্রুপ, মাত্রা সম্পূর্ণ ভিন্ন ভিন্ন হতে পারে এবং আপনার জন্য মারাত্মক সমস্যা তৈরী করেত পারে। তাই ঘুমের ঔষধ সেবন করার পূর্বে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে সেবন করতে হবে। এবং প্রেসক্রিপশন ছাড়া সাধারণত ফার্মাসিস্টরা ঘুমের ঔষধ বিক্রি করতে পারেন না। যদিও আমাদের দেশে এসব নিয়ন্ত্রণ করা অনেক সময় কঠিন। তাই নিজেদেরকেই সতর্ক থাকতে হবে।

ঘুমের ঔষধের নাম কি বা জানা কেন প্রয়োজন ? – Why You Should Know About Sleeping Pill?

ঘুমের ঔষধের নাম কি ; প্রায় ৫০-৭০ মিলিয়ন আমেরিকান জনগণ ঘুমের সমস্যায় ভুগছেন। আমাদের এধরনের রিসার্চ কম হলেও বাংলাদেশেও সংখ্যাটা এমনি হবে। কিছু গবেষণা ফলাফলে দেখা যায়, যুক্তরাষ্ট্রের ৩০% পর্যন্ত প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষ বলেছেন যে তারা প্রতি রাতে ৬ ঘন্টারও কম ঘুমাযন বা ঘুমানোর সুযোগ পান।
যদিও অনেকে এটিকে একটি সাধারণ সমস্যা মনে করেন, তবে এ ধরনের ঘুমের প্যাটার্ণ মারাত্মক পরিনতি ডেকে আনতে পারে। কম ঘুম আপনার শক্তি হ্রাস করতে পারে, সারাদিন ক্লান্ত থাকবেন এবং উচ্চ রক্তচাপ এবং ডায়াবেটিসের মতো রোগের ঝুঁকি অনেক বাড়িয়ে তোলে।

বিভিন্ন ধরনের ঘুমের ঔষধের নাম

মনে করুন, কারো শরীরে কোথাও খুব ব্যাথা, ব্যাথার কারণে ঘুম হচ্ছে না, তাহলে তার জন্য ঘুমের ঔষধ অথবা Sleeping Medicine বা Sleeping Pill প্রয়োজন হতে পারে। আবার কারো যদি দুশ্চিন্তায় ঘুম হয় না, তার জন্য আবার অন্য প্রকারের ঔষধ লাগতে পারে। তবে বেশির ভাগ মানুষ মানসিক সমস্যা বা ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির জন্য ঘুমের ঔষধ সেবন করেন। তবে , ঘুমের ঔষধ খাওয়ার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। আপনার জন্য বহুল ব্যবহৃত কিছু টি ঘুমের ঔষধের তালিকা দেয়া হলো।
ঘুমের ঔষধের জেনেরিক নাম
বহুল ব্যবহৃত ঘুমের ঔষধের জেনেরিক বা মূল নাম জানলে আপনি ঐ গ্রুপের বিভিন্ন কোম্পানির বিভিন্ন ঔষধ ব্যবহার করতে পারেন। কিছু গুরুত্বপূর্ণ ঘুমের ঔষধের নাম-

  • ক্লোনাজেপাম
  • ডায়াজেপাম
  • এলপ্রাজোলাম
  • এমিট্রিপটাইলিন
  • ব্রোমাজেপাম
  • বুসপিরন
  • ক্লোরডায়াজেপক্সাইড
  • ক্লোরপোমাজিন হাইড্রক্লোরাইড
  • ক্লোবাজাম
  • ক্লোনিডাইন হাইড্রক্লোরাইড
  • কিটোটিফেন ইত্যাদি।

পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াহীন ঘুমের ঔষধের নাম

মানুষের শরীরে Melatonin (মেলাটোনিন) নামক একটি রাসায়নিক উপাদান বা ক্যামিকাল রয়েছে, যার কাজ হল মানুষের ঘুম নিয়ন্ত্রন করা। Melatonin (মেলাটোনিন) এমন একটি হরমোন যা শোয়ার সময় মানুষের শরীরকে ঘুমিয়ে পড়ার জন্য প্রস্তুত হরে তোলে। এই উপাদানটি Circadian Cycle এর সাথে জড়িত। Melatonin increase হয় সন্ধ্যার পরে। কারো কারো Melatonin (মেলাটোনিন) এর ঘাটতিই হওয়ার ফলে অনিদ্রার রোগ হয়। ঘুমের জন্য প্রতি রাতে শোবার আধা ঘন্টা আগে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ১ টি ঘুমের ঔষধ খেতে পারেন।

ক্লোনাজিপাম ও ব্রোমাজিপাম ঘুমের ঔষধের নাম ও দাম

বাংলাদেশে ক্লোনাজিপাম ও ব্রোমাজিপাম গ্রুপের বেশ কিছু ঘুমের ঔষধ পাওয়া যায় যা বহুল ব্যবহৃত হয়। ক্লোনাজিপাম এবং ব্রোমাজিপাম হল জেনেরিক নাম। ঔষধগুলো মূলত স্ট্রেস বা টেনশন কমিয়ে আনতে সহায়তা করে। ব্রোমাজিপাম গ্রুপের বেশ কিছু ঘুমের ঔষধ বাংলাদেশে পাওয়া যায়। ঔষধটি ৩ মিগ্রা থেকে পাওয়া যায়। নিচে ৩ মিলিগ্রাম ঔষধের তালিকা দেওয়া হলো।

দ্রুত ঘুমের ঔষধের নাম কি

Ancotil, Anxio, Anxionil, Anxirel, Benzopam, Bomaz, Bopam, Bromazep, Bronium, Broze, Brozep, Freten, Kpam, Laten, Laxonil, Laxyl, Lazonil ইত্যাদি। প্রতিটি ঔষধ ৩ মি.গ্রা.
ব্রোমাজিপাম ঘুমের ঔষধটি ধীরে কাজ করে । খাওয়ার রাতে আগে ঘুমের ওষুধ টি খাওয়ানো ভালো! ঘুম ছাড়াও বিভিন্ন মানসিক সমস্যা, খিচুনি ইত্যাদি রোগে এটি ব্যবহার করা হয়।

ব্রোমাজিপাম ঔষধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

ব্রোমাজিপাম এর বেশ কিছু পার্শপ্রতিক্রিয়া রয়েছে । তার মধ্যে অন্যতম পার্শপ্রতিক্রিয়াগুলো হলো: দিনের বেলায় ঘুম ঘুম ভাব, ভারসাম্য কমে যাওয়া এবং এটাক্সিয়া। একেক জনের ক্ষেত্রে একেক রকম পার্শপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয় । তাছাড়া এসব ঔষধ লিভারের সমস্যা যাতের আছে তাদের প্রেসক্রাইব করা হয়না।

অন্য দিকে ক্লোনাজিপাম গ্রুপের ঘুমের ঔষধ সাধারণতঃ খিচুনি রোগ, প্যানিক অ্যাটাক, বাইপোলার ডিজঅর্ডার এবং ঘুম না হওয়া ইত্যাদি উপসর্গের জন্য বহুল ভাবে ব্যবহৃত হয়। তবে এই ঘুমের ঔষধটি পাগল বা সাকোসিসের রোগীদেরও দেয়া হয়। ক্লোনাজিপাম জাতীয় ঔষধটি দ্রুত ঘুমের জন্য ব্যবহৃত হয়। ০.৫ মিগ্রা, ১ মিগ্রা, ২ মিগ্রা ক্ষমতার ক্লোনাজিপাম বাজারে পাওয়া যায়।

ক্লোনাজিপাম ঘুমের ঔষধের নামের তালিকা

Aristopharma কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নাম Arotril
Beximco কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নাম Xetril
Roche কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নাম Rivotril
Orion কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নাম Rivo
Opsonin কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নাম Pase
Acme কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নাম Leptic
Epitra কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নাম Square
General কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নাম Epiclon
Incepta কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নাম Disopan
Reneta কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নাম Denixil
SKF কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নাম Cloron
ACI কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নাম Clonium
Healthcare কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নাম Clonatril
Popular কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নাম Clonapin
Pharmasia কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নাম Clonzy
Biopharma কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নাম Cloma

দ্রূত ঘুমের সিরাপ

দ্রূত ঘুমের সিরাপ : সাধারণত সরাসরি ঘুমের সিরাপ এডভাইস করা হয়না। তবে বারবিট সিরাপ শিশুদের খিচুনি রোগে চিকিৎসকরা প্রেস্ক্রাইব করে থাকেন। তবে এলার্জি, শ্বর্দি বা কাশিতে মূলত ব্যবহৃত হয় এমন ঔষধগুলো খেলেও ঘুম হয়। যেমন- এলারিড সিরাপ ,প্রোজমা সিরাপ ,টোটি সিরাপ কিটোটিফেন জাতীয় সিরাপ।

আরেকটি ঘুমের ঔষধের নাম ডায়াজিপাম

ডায়াজিপাম ৫ মিগ্রা. গ্রুপের ঘুমের ঔষধ বাংলাদেশের একটি বহুল ব্যবহৃত ঘুমের ঔষধ। এই ঔষধটি বাংলাদেশে চিকিৎসকদের প্রেসক্রপিশন অনুযায়ী ঘুমের ঔষধ হিসেবে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয়। ডায়াজিপাম গ্রুপের স্কয়ার কোম্পানির ঔষধ সিডিল ( Sedil ) ঘুমের ঔষধ হিসেবে অনেকেই চিনেন এবং সবচেয়ে বেশি বিক্রি হওয়া ঘুমের ঔষধ গুলোর মাঝে একটি।

বাজারে পাওয়া যায় এমন ডায়াজিপাম গ্রুপের ঘুমের ঔষধের নাম কি?
যেমন- Azepam, D-Pam, Diazimet, Easium, Evalin, G-Diazepam, Orinil, Pharmapam, Relaxen, Sedapen, Sedatab, Sedil, Seduxen, Seequil-S ইত্যদি বিভিন্ন কোম্পানীর বহুল বিক্রিত ডায়াজিপাম ঔষধ।

হোমিও চিকিৎসকদের ব্যবস্থাপত্রে ব্যবহৃত ঘুমরে ঔষধের কিছু নাম

ঘুমের হোমিও প্যাথি ঔষধের নাম : হোমিও প্যাথিতে ব্যবহৃত ঘুমের ঔষধের নাম তালিকা বা নাম, Homeopathic Sleeping Medicine Name in Bengali, হোমিওপ্যাথিক ঘুমের ওষুধের নাম তালিকা ,ছবি ও বিস্তারিত জানতে নিম্নের লেখাগুলো পড়ুন ।

Nux vomica

রাতে শুতে যাওয়ার পরে সারাদিনের কাজ-কর্মের দুশ্চিন্তা আসলে নানা দুশ্চিন্তামাথায় কাজ করতে থাকলে, অসহনীয় বিরক্তির উদ্রেক হয় ; ফলে ঘুম আসতে চায় না। বিশেষত যারা বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্য বা পূর্ব থেকেই টানা সিডেটিভ বা ঘুমের ঔষধ নিয়মিত খান, মাত্রাতিরিক্ত চা-কফি পান করেন, যাদের পেটের অসুখ বেশী হয়, এই ঔষধটি তাদের অনিদ্রায় ভালো কাজ করে থাকে বলে বলা হয়। নাক্স ভমিকা ঔষধটি মানুষের দুশ্চিন্তা জনিত ইমসোমনিয়া বা অনিদ্রা থেকে পরিত্রাণ পেতে সহায়তা করে।

Opium

ঘুমঘুম ভাব থাকা সত্বেও ঘুম আসে না, চোখে প্রচন্ড ঘুম থাকে কিন্তু শোয়ার পর ঘুম আসতে চায় না। খুবই সেনসিটিভ কান, ঘড়ির কাটার টিক টিক শব্দ কিংবা দূরের কোন পশু পাখির ডাকে ঘুম ভেঙ্গে যায়। দুঃস্বপ্ন দেখে, কুকুর, বিড়াল, প্রেতাত্মা, বোবায়ধরা স্বপ্নে দেখে, ঘুমের মধ্যে দম বন্ধ হয়ে আসে ইত্যাদি লক্ষণ থাকলে অপিয়াম ঔষধটি প্রেসক্রাইব করেন হোমিও চিকিৎসকরা।
Ignatia amara

সাধারণত শোক কিংবা দুঃখ, বিরহ অথবা বিচ্ছেদ ইত্যাদি মানসিক কারণে ঘুম না আসলে তাতে ইগ্নেশিয়া আমারা – Ignatia amara প্রেসক্রাইব করা হয়।কারো ঘুম এত পাতলা থাকে যে, তারা ঘুমের মাঝে আশেপাশের সবকিছুই যেন শুনতে পায়। তাদের জন্য এ ওষুধটি প্রেসক্রাইব করা হয়।


এ ছাড়াও হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকগন বাংলাদেশে Magnesium carbonica, Cocculus indicus, Cannabis indica, Kali phosphoricum, Ambra Grisea, Hyoscyamus niger, Belladonna ইত্যাদি ব্যবহার করেন যদিও এসব ঔষধের ক্ষেত্রে ইউএসএফডিএ এপ্রুভালের প্রমাণক সব ক্ষেত্রে নাই।

ইনসোমনিয়া বা অনিদ্রার ফল

  • সঠিকভাবে ঘুম না হলে তথা ইনসোমনিয়া হলে মানুষের শরীরে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হতে পারে। যেমন –
  • শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক কমে যাওয়া
  • রক্তচাপ বা ব্লাড প্রেশার বেড়ে যাওয়া, হৃদরোগ বা হার্টের সমস্যা
  • স্ট্রোকের ঝুঁকি বেড়ে যাওয়া
  • মাথা ব্যথা বা প্রাইমারী হ্যাডেক
  • কোমর ব্যথা
  • ক্যানসার হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়
  • ওজন দ্রুত বাড়তে পারে
  • দুশ্চিন্তা অনেক বৃদ্ধি পায়
  • ধীরে ধীরে মেজাজ খিটখিটে হবে
  • কাজে মনোযোগ অনেক নষ্ট হয়ে যায় ফলে প্রোডাক্টিভিটি কমে যায়।
  • পড়াশোনা ও অন্য কাজে মনোযোগের অভাব
  • অল্প কারণেই রেগে যাওয়া
  • সামান্য পরিশ্রমেই ক্লান্তিবোধ করা ইত্যাদি।

এছাড়া আরও অনেক ছোট বড় সমস্যা দেখা যেতে পারে

কি কি খাবার খেলে বা অভ্যাস থাকলে ঘুম ভাল হবে?

  • কুসুম গরম দুধ – কুসুম গরম দুধ ঘুমের ওষুধের বিকল্প হতে পারে। অনেকেরই রাতের ঘুমে সমস্যা হয়, এটা অস্বাভাবিক কিছু নাহ। যাঁরা রাতে ঠিক সময়ে ঘুমাতে পারেন না বা শুয়ে একাত ওকাত করে সারা রাত কাটান, তাঁরা রাতে ঘুমানোর আগে হালকা গরম দুধ খেয়ে শুতে পারেন। দুধে আছে প্রচুর পরিমানে ট্রাইপটোফান ও এমিনো অ্যাসিড, যা মানুষের দেহে ঘুমের আবেশ তৈরী করে।
  • পাকা কলা – প্রতিদিন ১টি বা ২ টি পাকা কলা খেলে রাতে ভাল ঘুম হয়। পাকা কলায় আছে ম্যাগনেসিয়াম যা মাংসপেশীকে শিথিল করে ও হাত-পা এর মাংশ পেশীর ব্যথা কমাতে সহযোগিতা করে। তাছাড়া দৈনিক পাকা কলা খেলে মেলাটোনিন ও সেরোটোনিন নির্গত হয়ে দেহে ঘুমের আবেশ তৈরী হয়।
  • আলু – সেদ্ধ বা রান্না করা আলু মানুষে রাতের ঘুমের সহায়ক একটি খাবার। আলু খেলে ট্রাইপটোফানের সাহায্যে হাই তোলায় ব্যাঘাত সৃষ্টিকারী এসিডটি নষ্ট হয়ে যায়। ফলে আপনার মস্তিষ্ক বেশ দ্রুতই আপনাকে ঘুমিয়ে পড়তে সহায়তা করে। তবে অতিরিক্ত আলু কখনই খাবেন না, মেদ বেড়ে যেতে পারে।
  • মধু – মধুকে অনেক সময় সর্বরোগের ওষুধ বলা হয়। মস্তিষ্কে অনেক গুলো গুরুত্বপূর্ণ নিউরোট্রান্সমিটার এর মাঝে ওরেক্সিন নামের একটি নিউরোট্রান্সমিটার আছে যা মতিষ্ককে উত্তেজিত করে তোলে এবং ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায়। রাতে ঘুমানোর আগে মধু খেলে মানুষের ব্রেইনের কোষের ভিতর গ্লুকোজ প্রবেশ করে এবং ওরেক্সিন উৎপাদন কমিয়ে দেয় কিছু ক্ষণের জন্য, যা মানুষকে দ্রুত ঘুমাতে সহায়তা করে।
  • বাদাম – পর্যাপ্ত ঘুমের জন্য আরেকটি উপকারী খাবার হলো বাদাম। যাদের রাতে ঘুমের সমস্যা অতিরিক্ত হচ্ছে তারা প্রত্যহ রাতের খাবারে সাথে ১০ থেকে ১২ টি বাদাম খেলে রাতের ঘুম ভাল হবে । তাছাড়া বাদাম হৃদরোগ ও মস্তিস্কের জন্য অতন্ত উপকারী।

ঘুমের ঔষধের ওভারডোজ বা অতিরিক্ত ডোজ

কখনই নির্ধারিত মাত্রার বেশি ঘুমের ঔষধ নেয়া যাবেনা। বেশি পরিমানে ঔষধ নিলে আপনার ইনসোমনিয়ার কোনো উন্নতি হবে না; বরং গুরুতর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হতে পারে। যদি সন্দেহ হয় কেউ বেশি মাত্রায় ঘুমের ঔষধ নিয়েছেন তহলে দ্রুত নিকটস্থ হাসপাতালে ভর্তি করতে হবে। কখনই চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ঘুমের ঔষধ খাওয়া যাবে না। আপনার ওষুধ অন্য কারুর একই রোগ থাকলেও তাকে দেবেন না। মাত্রাতিরিক্ত হয়ে যেতে পারে। বিস্তারিত তথ্যের জন্য অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

Topic: 100 টি ঘুমের ঔষধের নাম ছবি, ঘুমের ঔষধের নাম কি, Sleeping Medicine Name in Bengali , Ghumer Medicine Tablet , পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াহীন ঘুমের ঔষধের নাম , Osudh ar Name Bangla,Ghumer Osud er Name,ঘুমের ওষুধ সিডিল (Sedil) খাওয়ার নিয়ম, Ghumer osudh khawar niyom, রিভোট্রিল ( Rivotril ) খাওয়ার নিয়ম, সিডিল (Sedil) খাওয়ার নিয়ম,কড়া ঘুমের ঔষধের নামের তালিকা ও ছবি, দ্রূত ঘুমের সিরাপ , ঘুমের হোমিও ঔষধের নাম তালিকা ও ছবি , স্লিপিং পিল কীভাবে কাজ করে?, ঘুমের ঔষধের ওভারডোজ , ঘুমের ওষুধের ওভারডোজ।

Please Visit-

১২ সপ্তাহে বা ৩ মাসে ওজন কমানোর উপায়: ১ম সপ্তাহ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Cyclone Michaung, nine killed in floods. দক্ষিণ ভারতে ঘূর্ণিঝড় মিগজাউমের তাণ্ডব।